মাদরাসাতুস সুন্নাহ
যে বৈশিষ্ট্যের কারণে মহান আল্লাহ্‌ মানুষকে অন্য সব প্রাণীদের ওপর শ্রেষ্ঠত্ব দান করেছেন তা হলো জ্ঞান-বিজ্ঞান বা বুদ্ধি। আর এই এই জ্ঞান-বিজ্ঞান বা বুদ্ধির বিকাশ ও সমৃদ্ধি ঘটে শিক্ষার মাধ্যমে। শিক্ষা ছাড়া কোনো জাতি পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে না। শিক্ষা মানুষকে সভ্য ও সম্মানিত করে। প্রবাদ আছে শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। তাই ইসলামও এ গুরুত্বের স্বীকৃতি দিয়েছে শুরু থেকেই। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি প্রেরিত প্রথম ওহীই ছিল ‘আপনি পড়ুন’। আর ইসলামের শেষ নবী ইলম হাসিল ও জ্ঞানার্জনের প্রতি আরোপ করেছেন অশেষ গুরুত্ব। তিনি বলেছেন, ইলম অন্বেষণ করা প্রত্যেক মুসলিমের উপর ফরজ। (ইবনে মাজাহ, ২২৪)।
কিন্তু পরিতাপের বিষয় হল, আমরা ওহীর এ শিক্ষাকে আজ ভুলে গিয়েছি। তাই শিক্ষার এই বৈপ্লবিক পরিবর্তনের যুগে অন্যান্য শিক্ষা এগিয়ে গেলেও পিছিয়ে আছে ইসলামী শিক্ষা। সাম্রাজ্যবাদী পশ্চিমা সভ্যতার অপসংস্কৃতির কালো থাবায় মুসলিমরা আজ ভুলতে বসেছে তাদের দীন, ঈমান-আক্বীদা, শিক্ষা ও স্বকীয়তা।
তাই আজ প্রয়োজন এমন এক সমন্বিত ও শক্তিশালী ইসলামী শিক্ষা ব্যবস্থা, যার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীর ব্যক্তিসত্তা বিকাশের পথ হবে উন্মুক্ত, চরিত্র হবে সুন্দর, ঈমান হবে সুদৃঢ়, সমাজের প্রতি আপন দায়-দায়িত্ব পালনের অনুভূতি হবে তীব্র, স্বীয় দায়িত্ব পালনের বিষয়ে পরকালে জবাবদিহিতার ভয় থাকবে অন্তরে সদা জাগ্রত। আস-সুন্নাহ ফাউন্ডেশন এ কাজটিই করে যাচ্ছে। এ লক্ষ্যে ইসলাম ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বিত সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ফাউন্ডেশন এ লক্ষ্যে ঢাকার অদূরে চিটাগং রোডের সন্নিকটে মাদরাসাতুস সুন্নাহ (বালক) ও মাদরাসাতুস সুন্নাহ (বালিকা) নামে দুটি উন্নতমানের স্বতন্ত্র মডেল মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছে। পর্যায়ক্রমে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের প্রতিটি জেলায় কমপক্ষে একটি করে মডেল মাদরাসার পরিকল্পনা রয়েছে।
আমাদের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য একটাই, আধুনিক বিশ্বের সকল প্রকার চ্যালেঞ্জকে সামনে রেখে জাতীয় ও দীনী উন্নয়ন এবং অগ্রগতি সাধনের জন্য ছেলে মেয়েদের যোগ্য হাফেয/হাফেযা, আলেম/আলেমা, দাঈ/দা-ঈয়া হিসাবে গড়ে তোলার পাশাপাশি একদল আদর্শ, মননশীল, নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন, যোগ্য ও দক্ষ নাগরিক তৈরির বাস্তবমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
মহান আল্লাহ্‌ তাআলা আমাদের এই পথচলাকে সহজ করুন, দীন ও উম্মাহর কল্যাণে কবুল করুন। আমীন।

আস-সুন্নাহ ফাউন্ডেশন

গভঃ রেজিঃ ‍S-13111/2019